যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন, চক্রান্ত রুখে দেয়ার আহ্বান

প্রকাশিত: ১১:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৫, ২০২১

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধিঃ

বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতৃত্ব দিয়ে আসা উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। ভাষা আন্দোলন, গণআন্দোলন, স্বাধিকার আন্দোলন, সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাসের পাতায় পাতায় একটিই নাম, বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ। লাখ লাখ নেতাকর্মীদের বুকের রক্ত, ত্যাগ তিতিক্ষা ও অঙ্গীকারদীপ্ত সংগ্রামী ভূমিকা আর আওয়ামীলীগের ইতিহাসের একাকার হয়ে আছে । দীর্ঘ যাত্রার এ সফল্য ও অনুভূতিকে যেন আদর্শহীন উইপোকার দখলে না যায়।

এসব বক্তব্যকে প্রাধান্য দিয়ে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটে পালিত হলো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ।
২৩ জুন বুধবার বিকেলে জ্যাকসন হাইটসের ডাইভার্সিটি প্লাজা থেকে ২৩শে জুনের স্মারক ২৩টি লাল-সবুজ বেলুন উড়িয়ে শুরু হয় শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মনসুর খান। এ সময় ৭২টি রক্ত লাল গোলাপ দিয়ে নেতা কর্মীরা জাতীর জনক মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পন করেন আব্দুর রহমান বাদশাহ এবং হিন্দেল কাদির বাপ্পা। মেহরাজ ফাহমী এবং দুরুদ মিয়া রোনেলের ব্যবস্থাপনায় আড়ম্ভড়পূর্ন শুভাযাত্রা সড়কপথ অতিক্রম করার সময় স্বদেশীদের সাথে বিদেশিদেরও হাত নেড়ে অভিবাদন জানাতে দেখা যায়।

শোভাযাত্রা পরবর্তি আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সৈয়দ বসারত আলী। কাজী কয়েছ আহমদ ও ফরিদ আলমের সঞ্চালনায় সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও দোয়া পরিচালনা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল।

বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, বাষট্টির ৬ দফা ও ১১ দফা আন্দোলন, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, ৬৯ এর গনঅভ্যুত্থান, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ, ৭৫ এর ১৫ আগষ্ঠ ও ৩রা নভেম্বর জেলহত্যা, ২১ আগষ্ঠ গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরনে দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। বীর মুক্তিযোদ্ধা ড: আব্দুল বাতেন শোক প্রস্তাব পাঠ করলে উপস্থিত দলের নেতা কর্মিরা ভাবগম্ভীর পরিবেশে শহীদদের উদ্দেশ্যে সম্মান প্রদর্শন করেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ বছরের সংগ্রাম, ত্যাগ, সফলতা ও বিশাল অর্জনের উপর চন্দন দত্ত একটি ডকুমেন্টারী প্রদর্শন করা হয়। ।

আলোচনার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শরাফ সরকার। তিনি তাঁর বক্তৃতায়, আওয়ামী লীগের জন্মবৃত্তান্ত তূলে ধরেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে প্রকৃত নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। দেশে ও প্রবাসে সদা-সতর্ক থাকা , যেকোন চক্রান্ত রুখে দেয়ার জন্য নেতা কর্মিদের সদা প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান তিনি।
আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, হাইব্রিডে ছেয়ে গেছে দল। তারা নিজেদের স্বার্থে দলের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করে দলকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলতে এখন দ্বিধা করছে না।সংবাদ সম্মেলন করে দেশ ও সরকার বিরোধী কর্মকাণ্ড যারা করছে তাদের রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানানো হয় সভা থেকে।
সভায় দলের স্বার্থ বিরোধি কর্মকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। নিজেদের স্বার্থে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গ সংগঠনগুলোতে ভাগ করে শাসন করার চতুর কাজ চালানো হচ্ছে বলে সভায় বক্তারা অভিযোগ করেন।তারা বলেন ,২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাগরিক সংবর্ধনা সভায় তিনি নিজেই সভাপতিত্ব করার পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ সভাপতির পদ সাংবিধানিক বিধিতে বিলুপ্ত হয়েছে। আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রথম অনুমোদিত কমিটির সদস্য সংখ্যা ছিল ৭৬ জন। বর্তমানে সম্পূর্ণ অসাংগঠনিক প্রক্রিয়ায়এসে দাঁড়িয়েছে ১৭৩ জনে। অনুমোদিত কমিটির বয়স ১১ বছর পেরিয়েছে। গত ৮ বছরে সিদ্দিকুর রহমান তিনি নিজের পছন্দের লোকদের সম্পূর্ণ অসাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় আবিস্কার ও বহিস্কারের খেলা খেলেছেন। তার মূল ধান্দা হলো বিভিন্ন পদের লোভ দেখিয়ে সাধারন কর্মিদের কাছ থেকে অর্থ উপার্জন করা। এখনো তিনি সেটাই করছেন। তিনি সরকার, দেশ, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা ও তার পুত্রকে নিজের নানা ধরণের বিতর্কিত বক্তব্য দিয়ে বিতর্কিত করছেন। কয়েক বছর আগে জাতীয় শোক দিবসে( ১৫ আগস্ট) সিদ্দিকুর রহমানের স্ত্রী শাহানারা রহমান অকারণে অট্টহাসিতে মাটিতে লুটিয়ে পড়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল।
বক্তারা বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলার জন্য আমরা সিদ্দিকুর রহমানকে সাধুবাদ জানাই । কিন্তু তিনি কতটুকু সৎ সেটাও তো দেখার বিষয় বলে তাঁরা উল্লেখ করেন। বক্তারা বলেন, সিদ্দিকুর রহমান বর্তমানে বাংলাদেশে একটা প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান। কিভাবে এমন একটা বড় প্রতিষ্টানের চেয়ারম্যান তিনি হলেন? বক্তারা প্রশ্ন রাখেন, সিদ্দিকুর রহমান যুক্তরাষ্ট্র কি চাকরী করেন? তার আয়ের উৎস কি? সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ আছে উল্লেখ করে তারা বলেন আমরা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীরা সকল দুর্নীতিবাদের বিচার চাই। দুর্নীতিমুক্ত একজন মানুষ এমন আন্দলন করলেই প্রবাসীরা এটাকে সাদরে গ্রহণ করবে তারা উল্লেখ করেন ।
বক্তারা বলেন, বাহাত্তর বছর পেরিয়ে তেহাত্তর বছরে পা দেয়া দলটিই আওয়ামী লীগ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের এ দলটিকে আজ নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন জাতীর জনকের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা।আন্তর্জাতিক মহলের কাছেও বাংলাদেশ প্রশংসিত হয়ে বিশ্বের অন্যতম সফল রাষ্ট্রনায়কে উপণীত হয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলে তাঁরা উল্লেখ করেন। কিন্তু প্রবাসে অবস্থনারত কিছু ব্যক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর সুন্দর ভাবমুর্তি বিনষ্ট হচ্ছে। যা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের তৃনমূল নেতা কর্মিরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না ।
বিশিষ্ঠ অতিথিবৃন্দ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তব্য রাখেন একুশে পদকপ্রাপ্ত কন্ঠযোদ্ধা রথিন্দ্র নাথ রায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা রহুল আমীন ভুঁইয়া,মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমদ চৌধুরী, আজিজুর রহমান সাবু,গোলাম রব্বানী চৌধুরী,ইলিয়ার রহমান, নুর উদ্দিন, শেখ মকলু মিয়া, তোফাজ্জল হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার হাসান , এনায়েত হোসেন, ফারুক লস্কর . নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের মাহি উদ্দিন,সৈয়দ আতিকুল ইসলাম,শাহীন আজমল , নিউজার্সি আওয়ামীলীগের টিপু সুলতান, আনোয়ার চৌধুরী, সৈয়দ শওকত আলী, মোহাম্মদ বদ্রুজ্জামান, মহিলা আওয়ামী লীগের জেসমিন বখারি, নিনা ইসলাম, নার্গিস আহমেদ বিউটি, ফেন্সি বেগম ,ও খায়রুন নাহার চৌধুরী প্রমুখ। যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের শেখ জামাল হোসেন,রিন্টু দাস, হেলিম উদ্দিন,ইফজাল আহমদ , রহিমুজ্জামান সুমন, মিজানুর রহমান চৌধুরী, আকমাম খান, শাখাওয়াত হোসেন চঞ্চল, শেখ আব্দুল বাতেন, রাজীব খান, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের ,জাফর আহমদ ,হাসান জিলানী, শেখ রাসেল ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারি আল আমীন বাবু, এছাড়া আব্দুল ওয়াদুদ ,ও সৈয়দ জালাল, লিটু আহমেদ, লাল রহমান উপস্থিত ছিলেন।
বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মিদের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২তম জন্মদিনের কেক কেটে এবং জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যম অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email