কবিতা “আর্তনাদ

প্রকাশিত: ১২:২৩ অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২১
কিসের তরে ছুটছি মোরা
ছুটছি দিন-রাত,
কাজের বেলায় পাজি মোরা
দেখাই অজুহাত।
বিত্তবানের ছেলে ঘুমায়
নেইকো চিন্তার লেশ,
পথের ছেলেটা ঘুমায় পথে
কুকুরের সাথে বেশ।
ঘুম ভাঙে তার সূর্য কিরণে
ঝড়ের মধ্যে কাঁপে,
এই বুঝি হায় প্রাণটা গেল
মায়ের কথা পরে মনে।
মা যে তাহার করত আদর
হাত বুলিয়ে পিঠে,
নিজে ভুখা থেকে দিত খাবার
ছেলের মুখে তুলে।
অনাদরে থাকে পরে
মায়ের বুকের ধন,
নেয় নাকো কেউ খোঁজ তাহার
ফাঁকা তাহার এই ভুবন।
ভুখা থাকিয়া, বাসি খাইয়া
বাঁধিয়াছে পেটের রোগ,
পথ্য সে পাইবে কোথা?
খাবারই জুটে না রোজ।
এমনি করিয়া এক সন্ধ্যেবেলা
পেটের পীড়া ভাসে,
জীবন প্রদীপ নিভু নিভু করে
যমদূত তাহার দাঁড়ায় নীরবে এসে।
নিজ ছেলেরা ধুকে মরে
ঝড়ায় প্রাণ অগণিতে,
ভীনদেশি বন্দনায় আছে মত্ত
জোয়ান-বৃদ্ধ সকলে।
নষ্ট সমাজে বাস মোদের
অবহেলিতরা আজ অভিশাপ,
ভণ্ড সকল আছে ক্ষমতায়
শুনবে তাদের আর্তনাদ!
 শিক্ষার্থী, ফার্মেসি বিভাগ,
 মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
Print Friendly, PDF & Email