কালীগঞ্জে স্ত্রীর ছুরিকাঘাতে স্বামী আহত,  আটক স্ত্রী 

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২১

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধী স্বামী মঞ্জু মিয়া (৪৫) কে নাক বরাবর কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্ত্রী আনজু বেগম (৩৮)  এর  বিরুদ্ধে। আহত মঞ্জু মিয়া উপজেলার তালুক শাখাতী ভিতরকুটি গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে এবং স্ত্রী আনজু বেগম বড়দিঘীরপাড় এলাকার আবুল কালামের মেয়ে।

শুক্রবার (৩০ জুলাই)সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায়  উপজেলার মদাতী ইউনিয়নের তালুক শাখাতী ভিতরকুটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রতিবন্ধী মঞ্জু মিয়া (স্বামী)  গুরুতর আহত অবস্থায় কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

এ ঘটনায় শুক্রবার রাতেই মঞ্জু মিয়ার ছোট ভাই সহিদুল ইসলাম  বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। 

এজাহার সুত্রে জানা যায়,  ১৮ বছর পুর্বে একই উপজেলার বড়দিঘীরপাড় এলাকার আবুল কালামের মেয়ে আনজু বেগমের সহিত তালুক শাখাতী এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে প্রতিবন্ধী মঞ্জু মিয়ার সাথে। বিয়ের পর ভালই চলছিল তাদের সংসার। বিয়ের কিছুদিন পর স্ত্রীর চালচলনে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে প্রায় সময় ঝগড়াবিবাদ লেগেই থাকত।

এরই একপর্যায় শুক্রবার ৩০ জুলাই স্বামী বাজার করে বাড়িতে এসে বিছানার চাদর এলোমেলো দেখতে পায়। স্ত্রী আনজু বেগমের নিকট বিছানা এলোমেলো হওয়ার কারন জানতে চাওয়ায় দুজনের মাঝে তর্কবিতর্ক হয়। পরে স্ত্রী আনজু বেগম স্বামী মঞ্জু মিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো চাকু দিয়ে নাক বরাবর কোপ মারে। স্ত্রীর কোপে চিৎকার দিয়ে গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে পড়ে যান স্বামী মঞ্জু মিয়া। তার চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন স্ত্রী আনজু বেগম। পরে স্থানীয়রা মঞ্জু মিয়ার স্ত্রীকে আটক করে কালীগঞ্জ থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে আহত মঞ্জু মিয়াকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন এবং তার স্ত্রী আনজু বেগম কে আটক করে থানায় নিয়ে যান পুলিশ।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মোঃ সাজ্জাদ হোসেন ঘটনার সতত্যা নিশ্চিত করে জানান,  এ ঘটনায় আহত মঞ্জু মিয়ার ছোট ভাই বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। আসামী  আনজু বেগমকে গ্রেপ্তার করে লালমনিরহাট জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email