জবি নতুন ক্যাম্পাসের মেয়াদ তিন বাড়লেও হয়নি মাস্টারপ্ল্যান

প্রকাশিত: ২:৫৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১

ইয়াছির আরাফাত সবুজ,জবি প্রতিনিধি,
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) নতুন ক্যাম্পাসের প্রকল্পের তিন দফায় মেয়াদ বাড়লেও এখন পর্যন্ত মাষ্টারপ্লানের কোম্পানী নিয়োগ হয়নি। কোম্পানী নিয়োগে জটিলতা ও সরকারের গুরুত্বপূর্ন মন্ত্রনালয়ের এক প্রতিমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে তিন বছরে মাস্টারপ্লান কোম্পানী নিয়োগ দিতে পারেনি। কোম্পানী নিয়োগের আগে এ প্রতিমন্ত্রী একটি নির্দিষ্ট কোম্পানীর তৈরি করা মাষ্টারপ্লান বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. মীজানুর রহমানকে সাথে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করেন। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মাস্টারপ্লান নিয়োগ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করার জন্য শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে একটি চিঠি প্রেরণ করবেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ড. ইমদাদুল হক।

জানা যায়, ২০১৯ সালে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস স্থাপন: ভূমি অধিগ্রহন ও উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের জন্য ২৯ কোটি ৫৮ লক্ষ ৯৮ হাজার টাকার ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। ২০১৯ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। ২০২০ সালের ১২ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আরবানাকে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসাবে নিয়োগে সুপারিশ করে। হয়। গত ১১ মার্চ শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ২০২০-২১ আর্থিক বার্ষিক কর্মসূচির সভায় নতুন ক্যাম্পাস প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগ ও মাস্টার প্লান প্রনয়নের জন্য ক্রয় প্রক্রিয়া পিপিআর অনুযায়ী না হওয়ায় বিষয়টি মন্ত্রনালয় থেকে অনুমোদন দেয়নি। পরবর্তীতে মাস্টারপ্লানের কাজের জন্য সিঙ্গেল চয়েজের ভিত্তিতে আরবানা কোম্পানীকে প্রায় ৫ কোটি টাকায় কাজ করার জন্য নির্দিষ্ট করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে অনুমোদনের জন্য পাঠায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। নিয়মানুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০ একর জমির মাষ্টারপ্লানের জন্য কমপক্ষে ১০০ একর জমিতে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কিন্তু এ নিয়মের ব্যতয় ঘটায় এ সিদ্ধান্তও বাতিল করা হয়।

২০১৯ সালে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. মীজানুর রহমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এ মাস্টারপ্লানের চিত্র উপস্থাপন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই মাস্টারপ্লানের চিত্র বিভিন্ন জায়গায় প্রদর্শনও করেন। ২০২১ সালের ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক যোগদানের পর মাস্টারপ্লানের কোম্পানী নিয়োগে জটিলতা ও অনিয়মের কারণে পুরো প্রক্রিয়া বাতিল করেন। গত ২৩ আগস্ট মাস্টারপ্লানের জন্য পূনঃদরপত্র আহ্বানে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ড. ইমদাদুল হক নির্দেশনা দেন। কিন্তু ফের পূন:বিজ্ঞপ্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সাহায্যে মাস্টারপ্লানের কাজের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর মধ্যে প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত তিন দফায় বৃদ্ধি হয়েছে। মাস্টারপ্লান না হওয়ায় লেক নির্মানের টেন্ডার বাতিল হয়েছে। আটকে আছে পুরো কাজ।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী সাহাদাত হোসেন বলেন, মাস্টারপ্লানের কাজ টেন্ডারের মাধ্যমে হলে নতুন ক্যাম্পাসের কাজ দ্রুত করা যাবে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য মাস্টারপ্লান প্রক্রিয়াটির কাজ শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে করার জন্য আমাদেরকে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে চিঠি দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে কাজটি পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে যাবে। এভাবে কাজটি করলে অনেক দীর্ঘায়িত হবে।

Print Friendly, PDF & Email