সফলতার এক অনন্য অধ্যায়

প্রকাশিত: ১২:১৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
সিদ্দিকুর রাহমান-স্পেন:
রাহমান সাহেব সহজ-সরল, বিনয়ী ও মিষ্টভাষী একজন মানুষ। এক কথায় ভীষণ মিশুক। নিজেও জীবনযাপন করেন সৎ ও সত্যতার নিরেট এক প্লাটফরমে। খুঁজে বেড়ান জীবনের মানে। মানুষটিকে কেউ ডাকেন রাহমান ভাই  কেউ বা আব্দুর রাহমান।
ব্যবসার জগতে সফল এক মানুস। সাদাসিধে জীবন অত্যন্ত সাধারণ জীবনযাপনে অভ্যস্ত রাহমান সাহেব। বিলাসিতা একেবারেই টানে না তাকে। বাবার কাছ থেকে সততা, সাম্য ও সরলতার শিক্ষা পেয়েছেন তিনি। বললেন,  “ভালো মানুষের জুতা ছাপ করে দেবে, তাতেও সম্মান আছে। কখনো খারাপ মানুষ, দুশ্চরিত্র মানুষের সরদার হয়ো না”। ’
রাহমান সাহেব একজন সফল  ব্যবসায়ী। ফ্রুতেরিয়া আলিমেন্তাছিওন এর ব্যবসা করেন। থাকেন স্পেন এর মাদ্রিদ শহরে।২০১১সালেই ফ্রুতেরিয়া আলিমেন্তাছিওন এর ব্যবসা শুরু করেন।নাম ছিল ললা মার্কেট।এরপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি।পেয়েছেন একের পর এক সফলতা।মাদ্রিদের ভিতরে দিয়েছেন আরো একাধিক ফ্রুতেরিয়া আলিমেন্তাছিওন ও মোবাইল এক্সাসরিস এর দোকান। সফল ব্যবসায়ী রাহমান সাহেব সত্যকেই ভিতরে লালন করেন তিনি। তিনি বড় বড় স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসেন। কঠোর পরিশ্রম দিয়ে তা পূরণ করে ছাড়েন। তিনি ব্যাক্তি জীবনে ও সফল মানুষ। উনি আব্দুর রাহমান সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের বাউরভাগ গ্রামে ১৯৮০ ইং সনের ২ই এপ্রিল মরহুম ইদ্রিস আলী ও মরিয়ম বেগমের ঘর আলোকিত করে জন্ম গ্রহণ করেন।
৬ ভাই ৩ বোনের মধ্যে উনি   ভাইদের মধ্যে ৫ম।উনি ছাত্রজীবনে ও ছিলেন মেধাবী লাউতা প্রাথমিক বিদ্যালয়, লাউতা উচ্চ বিদ্যালয় এবং বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজে লেখা পড়া শেষ করেন। বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের ২০০০ ইং সনে ছাত্রছাত্রীদের সরাসরি ভোটে কামিল,সারওয়ার,  রাহমান পরিষদের এ জি এস নির্বাচিত হন।ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। পরিবারের তাগিদে ২০০৪ ইং তে পারি  দেন প্রবাসে। শুরু হয় কর্ম জীবন স্পেনে ফ্রুতেরিয়া আলিমেন্তাছিওন এর দোকানে এক দোকানেই কাজ করেন দীর্ঘ ৭ বছর। পরে ২০১১ ইং নিজেই ব্যাবসা শুরু করেন। তিনি বলেন, সফল হতে হলে প্রথমে দরকার সততা। তারপর সঠিক লক্ষ এবং তা বাস্তবায়ন করার স্পৃহা ও কঠোর পরিশ্রম। যদি কেউ সুশিক্ষিত হয় এবং লক্ষ ঠিক করতে পারে তাহলে অবশ্যই সে সফল হবে। অন্যরা বিশ্বাসঘাতকতা করলেও নিজের কাজ আর পরিশ্রম নিজের সাথে কখোনোই বিশ্বাসঘাতকতা করেনা। পরিশ্রম অবশ্যই সফলতা এনে দেবে।
চিন্তা করেছি যদি পরিশ্রম করে যাই আর লক্ষ ঠিক রাখি তাহলে সফলতা একদিন আসবেই। কঠোর পরিশ্রম করার কারণে সফলতা আসতে বেশীদিন লাগেনি।
প্রতিটি সফল মানুষের ব্যর্থতার গল্প আছে। একবারে কেউ সফল হননি। সফল উদ্যোক্তা, রাজনীতিবিদ, লেখক, বিজ্ঞানী – যার কথাই বলা যাক, সবাইকেই ব্যর্থতার কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে অবশেষে সফল হতে হয়েছে। আবার এই সাফল্য পাওয়ার পরও অনেকে আবার ব্যর্থ হয়েছেন। আবারও তাঁরা উঠে দাঁড়িয়েছেন এবং আবার সফল হয়েছেন। এইসব সফল মানুষের সবার মধ্যেই একটা আশ্চর্য মানসিক শক্তি আর আত্মবিশ্বাস আছে। যত বড় ব্যর্থতার মুখেই তাঁরা পড়েন না কেন – কখনওই কাজ করা বন্ধ করেন না।  কখনওই তাঁরা বিশ্বাস হারান না। তাঁদের এইসব ব্যর্থতার গল্প থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। প্রতিটি গল্প থেকেই অনুপ্রেরণা নেয়ার মত কিছু না কিছু আছে।

আমরা জানি পৃথিবীতে কেউ সাফল্যের চামচ নিয়ে জন্মলাভ করে না। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সবকিছু অর্জন করতে হয়।
প্রবাদ আছে, ‘পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি’। পরিশ্রমের দ্বারা ভাগ্যের চাবিকাঠি এমনভাবে পরিবর্তন করা সম্ভব, যা অলস মানুষের কাছে অলৌকিক বলে মনে হয়। যে কোনো ক্ষেত্রে সফলতার প্রথম শর্ত হল প্রবল ইচ্ছাশক্তি ও কঠোর পরিশ্রম।
মানুষ যদি তার লক্ষ্যে অটুট থাকে এবং সেই অনুযায়ী কাজ করে, তবে একদিন সে সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছতে পারে। আমাদের চারপাশে অনেক প্রতিভাবান ব্যক্তি দেখতে পাই।

পৃথিবীর ইতিহাসে অনেক সফল ব্যক্তির নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে। যুগে যুগে, কালে কালে যারা স্মরণীয় ও বরণীয় হয়েছেন, প্রকৃতপক্ষে তাদের সাফল্যের পেছনে লুকিয়ে আছে কঠোর পরিশ্রম ও অধ্যবসায়। আধুনিক বিশ্বে যা কিছু আবিষ্কার হয়েছে সবই পরিশ্রমের ফসল।
মানুষ কোনো কাজে প্রথমবারেই সাফলতা লাভ নাও হতে পারে। দীর্ঘদিনের পরিশ্রম বা নিরবচ্ছিন্ন পরিশ্রমের ফলেই ধরা দেয় কাংক্ষিত সাফল্য। কোনো কাজে ব্যর্থ হলে তাতে হতাশ না হয়ে সেই কাজে কঠোর মনোনিবেশ করলে সফল হওয়া অবশ্যই সম্ভব।
একজন ছাত্র কঠোর অধ্যয়নের মাধ্যমেই ভালো ফলাফল করে থাকে। একজন কৃষক রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে চাষ করেন বলেই হাসিমুখে ফসল উত্তোলন করেন।
কিছু মানুষ বিশ্বাস করে, প্রতিভা বা ভাগ্যের দ্বারা অসাধ্য সাধন করা যায়। কিন্তু পৃথিবীতে যারা কীর্তিমান, তারা প্রতিভার চেয়ে কঠোর পরিশ্রমকেই গুরুত্ব দিয়েছেন বেশি।

পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহ কোনো জাতির ভাগ্য পরিবর্তন করেন না, যতক্ষণ সে নিজের ভাগ্য নিজের কর্মের দ্বারা পরিবর্তন না করে।’ প্রখ্যাত বিজ্ঞানী স্যার আইজ্যাক নিউটন বলেছেন, সাফল্যের মাত্র দুই ভাগ হল প্রতিভা আর বাকি আটানব্বই ভাগই হল কঠোর পরিশ্রম।
পরিশ্রমহীন ব্যক্তিদের পরিণতি অতীব করুণ হয়। প্রবাদ আছে, ‘অলস মস্তিষ্ক শয়তানের কারখানা’। পরিশ্রমহীন মানুষ সবার কাছে নিগৃহীত হয়। তাই সফলতার পথে এগিয়ে যেতে আমাদের কঠোর পরিশ্রমী হতে হবে।
লেখকঃ-মাদ্রিদ, স্পেন।

Attachments area
Print Friendly, PDF & Email