চীন- ভারত বুঝিনা,পদ্মা সেতুর মতো তিস্তা মহাপরিকল্পনার দ্রুত বাস্তবায়ন চাই।

প্রকাশিত: ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১
তিস্তা মহাপরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়ন,তিস্তা চুক্তি সই,জলাধার নির্মাণ, তিস্তা নদীর শাখা-প্রশাখা ও উপশাখা নদীর সাথে তিস্তার পূর্বেকার সম্পর্ক স্হাপন,তিস্তার ভাঙনে সর্বস্বহারা মানুষের পুনর্বাসন,  কৃষি- কৃষকের স্বার্থ সুরক্ষা সহ ৬ দফা এবং সংগঠনের ঘোষিত ১৫ নভেম্বরের ” লং মার্চ ও মহাসমাবেশ ” কর্মসূচি বিষয়ে ২৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকেলে রংপুর সার্কিট হাউজে বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মোতাহার হোসেন, এমপির সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিস্তস বাঁচাও, নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি নজরুল ইসলাম হক্কানী  ও সাধারণ সম্পাদক শফিয়ার রহমান ।তাঁর হাতে তুলে দেন তিস্তা আন্দোলনের ৬ দফার পুস্তিকা ও প্রচার পত্র।
আমন্ত্রণ জানান ১৫ নভেম্বরের মহাসমাবেশে যোগ দিতে।তিনি  যৌক্তিক আন্দোলনের প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানান।  রংপুর বিভাগের সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করতে, তিস্তার ভাঙন ঠেকাতে- তিস্তা বাঁচাতে- মানুষ বাঁচাতে ” বিজ্ঞান সম্মতভাবে” তিস্তা মহাপরিকল্পনার কাজ ডিসেম্বর ২০২১ এর মধ্য শুরু করার দাবি জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হাতিবান্ধার তিস্তা পাড়ের ” তিস্তা ব্রিগেডের” তরুণ যোদ্ধা’রা।তাঁরা এমপি মহোদয়কে  বলেন,” চীন- ভারত” বুঝিনা, পদ্মা সেতুর মতো নিজস্ব অর্থায়নে তিস্তা মহাপরিকল্পনার কাজ শুরু করতে হবে।আরো বলেন রংপুর বিভাগের পাঁচ মন্রী,২২ এমপি সহ স্হানীয় সকল স্তরের জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক,সামাজিক,সাংস্কৃতিক শক্তির সম্মিলিত ও ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস জরুরি।
Print Friendly, PDF & Email