রিং আইডি এর পরিচালক সাইফুল ইসলাম ২ দিনের রিমান্ডে

প্রকাশিত: ২:১৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৪, ২০২১

মাত্র তিন মাসে শুধু কমিউনিটি জবসের নামেই গ্রাহকের ২১২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে রিং আইডি। প্রতারণার মামলায় গ্রেপ্তার প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক সাইফুল ইসলামকে ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
রিং আইডি প্ল্যাটফর্মটির বিরুদ্ধেও অভিযোগের শেষ নেই গ্রাহকদের। প্রতারণার মামলাও হয়েছে বেশ কয়েকটি।

প্রতিদিন ২৫০ টাকা থেকে শুরু করে সবোর্চ্চ ৫০০ টাকা আয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শুরু হয় কমিউনিটি জবস অফার। সিলভার এবং গোল্ড দুই ধরণের সদস্যপদের ফাঁদে পা দেন অনেকেই।

রাজধানীর ভাটারা থানায় হওয়া এক ভুক্তভোগীর মামলায় প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক সাইফুল ইসলামকে শুক্রবার (১ অক্টোবর) রাজধানীর গুলশান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। জিজ্ঞাসবাদে অর্থ আত্মসাতের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়ার দাবি তাদের। সিআইডি বলছে কমিউনিটি জবসের মাধ্যমে গ্রাহকের ২১২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে রিং আইডি।

সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টারের বিশেষ পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ বলেন, মে, জুন ও জুলাই- এই তিন মাসে রিং আইডি আমানত সংগ্রহ করেছে প্রায় দুইশ’ কোটি টাকা। এটাকে বৈধ করার জন্য তাদের আরও অনেক পরিকল্পনা ছিল। যেমন রিং পে। এটা নগদ-বিকাশের মতো। তারপর ই-টিকেটিং। ইভ্যালির মতো ই-কমার্স সাইট। মানে সব কিছুতেই এখানে অস্পষ্টতা রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি যেন বিদেশে টাকা পাচার করতে না পারে সেজন্য তাদের সব ব্যাংক হিসাব জব্দ করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি পাঠিয়েছে সিআইডি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি গ্রাহকের অর্থ নিয়ে পণ্য না দিয়ে প্রতারণা ও আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছেন বেশ কয়েকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের মালিক ও শীর্ষ কর্মকর্তারা। এর মধ্যে রয়েছে ইভ্যালি, ই–অরেঞ্জ ও ধামাকা শপিং। একই রকম অভিযোগে এবার গ্রেপ্তার হলেন রিং আইডির পরিচালক।

সামাজিক নেটওয়ার্কিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে রিং আইডির আত্মপ্রকাশ ঘটে ২০১৫ সালে। এক অ্যাপ এক দেশ এই স্লোগান ধারণ করা প্ল্যাটফর্মটির বিরুদ্ধেও অভিযোগের শেষ নেই গ্রাহকদের। প্রতারণার মামলাও হয়েছে বেশ কয়েকটি।

প্রতিদিন ২৫০ টাকা থেকে শুরু করে সবোর্চ্চ ৫০০ টাকা আয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শুরু হয় কমিউনিটি জবস অফার। সিলভার এবং গোল্ড দুই ধরণের সদস্যপদের ফাঁদে পা দেন অনেকেই।

রাজধানীর ভাটারা থানায় হওয়া এক ভুক্তভোগীর মামলায় প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক সাইফুল ইসলামকে শুক্রবার (১ অক্টোবর) রাজধানীর গুলশান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। জিজ্ঞাসবাদে অর্থ আত্মসাতের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়ার দাবি তাদের। সিআইডি বলছে কমিউনিটি জবসের মাধ্যমে গ্রাহকের ২১২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে রিং আইডি।

সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টারের বিশেষ পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ বলেন, মে, জুন ও জুলাই- এই তিন মাসে রিং আইডি আমানত সংগ্রহ করেছে প্রায় দুইশ’ কোটি টাকা। এটাকে বৈধ করার জন্য তাদের আরও অনেক পরিকল্পনা ছিল। যেমন রিং পে। এটা নগদ-বিকাশের মতো। তারপর ই-টিকেটিং। ইভ্যালির মতো ই-কমার্স সাইট। মানে সব কিছুতেই এখানে অস্পষ্টতা রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি যেন বিদেশে টাকা পাচার করতে না পারে সেজন্য তাদের সব ব্যাংক হিসাব জব্দ করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি পাঠিয়েছে সিআইডি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি গ্রাহকের অর্থ নিয়ে পণ্য না দিয়ে প্রতারণা ও আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছেন বেশ কয়েকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের মালিক ও শীর্ষ কর্মকর্তারা। এর মধ্যে রয়েছে ইভ্যালি, ই–অরেঞ্জ ও ধামাকা শপিং। একই রকম অভিযোগে এবার গ্রেপ্তার হলেন রিং আইডির পরিচালক।

Print Friendly, PDF & Email