রাজশাহী থেকে সরকার পতনের আন্দোলন গড়ে তোলা হবে যুবদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে-মিনু

প্রকাশিত: ২:৩৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০২১
প্রেস বিজ্ঞপ্তি-

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) বেইমানের দল নয়। বিএনপি যা বলে তাই করে। জনগণকে দেয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে। এখন সময় এসেছে দাবী আদায়ের আন্দোলনের। পিছু হটার আর সময় নেই। এই সরকার দেশটাকে পার্শবর্তী দেশের নিকট বিক্রি করার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ভারতের প্রধান সেনাপতি বাংলাদেশ দখল করার কথা বললেও বাংলাদেশের বিনা ভোটের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী তার কোন প্রতিবাদ জানান নি। ২৭ অক্টোবর ২০২১ ইং রোজ বুধবার জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজশাহী মহানগর ও জেলা যুবদল আয়োজিত যুবসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু এই কথাগুলো বলেন।
তিনি আরো বলেন, এখন একটাই কাজ হাসিনামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার। আর এখন সময় এসেছে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার। কেন্দ্র থেকে যে কোন সময় আন্দোলনের ডাক আসবে বলে জানান মিনু। তিনি আরো বলেন, এই সরকারের পায়ের নিচে মাটি সরে গেছে। বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আন্দোলনের কথা এবং যে কোন ধরনের সমাবেশ করার কথা শুনলে ভয়ে আঁতকে উঠে। সরকারের কিছু আজ্ঞাবহ পেটয়া বাহিনীকে দিয়ে পথ রোধ করার চেষ্টা করে তারা।
আজও এর ব্যক্তিক্রম ঘটেনি। মঙ্গলবার ঢাকাতে শান্তিপূর্ণ সমাবেশে যেভাবে পুলিশ নগ্ন হামালা চালিয়েছে এবং নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে। অনেককে আহত করেছে। বুধবার রাজশাহীতে যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে যুবসমাবেশে আসার সময় নেতাকর্মীদের উপরে অযাচিতভাবে হামলা চালিয়েছে পুলিশ। সেইসাথে গ্রেফতারও করেছে। ব্যানার ও ফেস্টুন কেড়ে নিয়েছে। তিনি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। সেইসাথে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত থাকতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন তিনি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও রাসিক সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন বলেন, আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা অতিরিক্ত করছে। বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠন ছাড়াও আর যেকোন দল শহরের মধ্যে মিছিল, সভা ও সমাবেশ করলে তাদের গার্ড অব অনার করে কর্মসূচী পালন করতে দেন তারা। তাদের বেলায় কোন ক্ষতি নেই। যত গাত্রদাহ বিএনপির বেলায়। এভাবে আর চলতে দেয়া হবেনা। বাধা আসলে প্রতিহত করা হবে। আর যে কোন সময় আন্দোলনের ডাক আসবে। এই ডাকে সাড়া দিয়ে রাজপথে নামার জন্য রাজশাহীর সকল স্তরের নেতাকর্মীদের আহবান জানান তারা।
রাজশাহী মহানগর ও জেলা যুবদলের আয়োজনে যুবসমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মহানগর যুবদল সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট। মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন ও জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম সমাপ্ত এর সঞ্চালনায় সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাজশাহী জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি’র আহবায়ক কমিটির সদস্য সৈয়দ মহসিন, রায়হানুল আলম রায়হান, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী, মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন উজ্জল, মহানগর যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হাসনাইন হিকোল, বর্তমান সিনিয়র সহ-সভাপতি মাইনুল হক হারু, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি সুলতান আহম্মেদ, মোজাফ্ফর হোসেন মুকুল, মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন বাবলু, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক জুলফিকার রহমান ভুট্টো, মহানগর তাঁতী দলের সভাপতি আরিফুল শেখ বনি, মহানগর কৃষক দলের সদস্য সচিব গোলাম সাকলায়েন ইকো।
আরো উপস্থিত ছিলেন ৭ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি বজুলর রহমান কচি, ৩নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি ওয়াজির উজির, স্বেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন, সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা, সাংগঠনিক সম্পাদক আনন্দ কুমার মন্ডল, রাজশাহী মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডভোকেট রওশন আরা পপি, অধ্যক্ষ সখিনা খাতুন, ও রোজিনা, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি ও মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকিসহ জেলা, বিভিন্ন থানা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবকদল, মহিলাদল,ছাত্রদলসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।
যুব সমাবেশে আগত নেতাকর্মীদের উপর আকস্মিক হামলা চালিয়ে পুলিশ ব্যানার ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে, আটক করে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করার অপচেষ্টা চালায় কিন্তু ব্যাপক জনসমাগম ঘটায় শাসকগোষ্ঠী নিয়োজিত পেটোয়া বাহিনীর অসৎ হীন উদ্দেশ্য বানচাল হয়ে যায় এবং উক্ত যুব সমাবেশটি সফল হয়।
শেষে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের মৃত ব্যক্তিদের রুহের মাগফেরাত এবং অসুস্থদের সুস্থ্যতা কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
Print Friendly, PDF & Email