জামাইয়ের কীর্তি শাশুড়ির সঙ্গে ‘পরকীয়া

প্রকাশিত: ২:২৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৩, ২০২১

শাশুড়ির সঙ্গেই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল জামাই। ‘সংসার’ বাঁধতে তারপর শাশুড়িকে নিয়েই চম্পট দিল জামাই! এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে হাওড়ার লিলুলায়। শাশুড়ি-জামাইয়ের এই ‘পরকীয়া’র ঘটনা সামনে আসতেই ব্যাপক শোরগোল পড়ে গিয়েছে এলাকায়।

জানা গিয়েছে, লিলুয়ার জগদীশপুরের নতুন বিশ্বাস পাড়ার বাসিন্দা বাবলা দাস। পেশায় ভ্যান চালক। ২০২৭ সালে রামপুরহাটের বাসিন্দা কৃষ্ণগোপাল দাসের সঙ্গে তিনি মেয়ে প্রিয়াঙ্কা দাসের বিয়ে দেন। অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে কাজের সূত্রে ঘরজামাই হিসেবেই ছিলেন অভিযুক্ত কৃষ্ণগোপাল দাস। শ্বশুরবাড়িতে থেকেই স্ত্রী প্রিয়াঙ্কার উপর নানাভাবে অত্যাচার করতেন অভিযুক্ত জামাই। মারধর করতেন। অশ্লীল অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করতেন। এমনকি শাশুড়ি শেফালি দাসের সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কেও জড়িয়ে পড়েন।

স্বামী কৃষ্ণগোপাল দাসের এই কুকীর্তির কথা স্ত্রী প্রিয়াঙ্কা যখন জানতে পারেন, তখন তাঁর উপর অত্যাচারের মাত্রা আরও বাড়ে। এমনকি প্রিয়াঙ্কাকে তাঁর শ্বশুরবাড়িতে রেখে আসেন। কিন্তু অভিযুক্ত জামাই কৃষ্ণগোপাল দাস নিজে বাড়ি ফেরেন না। তিনি উল্টো তাঁর শ্বশুরবাড়িতে অর্থাৎ প্রিয়াঙ্কার বাপের বাড়িতেই থেকে যান। এরপরই শাশুড়িকে নিয়ে চম্পট দেন ‘কীর্তিমান’ জামাই কৃষ্ণগোপাল দাস। ‘সংসার’ বাঁধতে শনিবার জামাইয়ের সঙ্গে পালিয়ে যান শেফালি দাস। এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই বাবলা দাস ও প্রিয়াঙ্কা দাস লিলুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছে লিলুয়া থানার পুলিস।

সুত্র – জি ২৪ ঘন্টা সংবাদ।

Print Friendly, PDF & Email