শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে খালি আসনে ভর্তি  হতে পারবে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত: ৩:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০২১

কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আসন খালি থাকলে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা সেই আসনে ভর্তি হতে পারবে। চলতি সপ্তাহে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হবে। তবে এ সুযোগ শুধু বেসরকারি বিদ্যালয়ের জন্য। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ডিজিটাল ভর্তি লটারির আগে অনেক অভিভাবক সন্তানের স্কুলে ভর্তি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন। একাধিক অভিভাবক জানিয়েছিলেন, অনেকে সন্তানের ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেননি। তাদের সন্তানরা এখন কোথায় যাবেন। তবে নতুন এ প্রক্রিয়ায় উন্মুক্তভাবে শিক্ষার্থীরা বেসরকারি বিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি হতে পারবে।

 মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, অনেকে ভর্তি প্রক্রিয়ায় আবেদন করেনি। বিষয়টি আমিও জেনেছি। তবে সব বিদ্যালয়ে ভর্তি শেষ হওয়ার পর সবাইকে সুযোগ দেয়া হবে।

সব শিক্ষার্থী সুযোগ পাবে কিনা, জানতে চাইলে মাউশি মহাপরিচালক বলেন, সব শিক্ষার্থী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে। বিষয়টি এমন হয়েছে, অনেকে পছন্দের স্কুলে ভর্তির সুযোগ পায়নি। এর মানে এই নয় যে, তারা আর কোনো স্কুলে ভর্তি হতে পারবে না।

এ বছর সারা দেশে প্রথম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত ভর্তির জন্য দুই লাখ ৭৬ হাজার ৬৪১ জন শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়। কেন্দ্রীয় লটারিতে যুক্ত হওয়া সারাদেশের দুই হাজার ৯০৭টি স্কুলে ভর্তির জন্য ৯ লাখ ৪০ হাজার ৮০৭ শূন্য আসনে সাত লাখ ১৪ হাজার ৮২১টি বিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য পছন্দক্রম অনুসারে আবেদন এসেছে। এতে মোট তিন লাখ ৬৮ হাজার ৭০৭ জন শিক্ষার্থী আবেদন করে। এর মধ্যে দুই লাখ ৭৬ হাজার ৬৪১ শিক্ষার্থী বেসরকারি স্কুলের প্রথম থেকে নবম শ্রেণিতে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছে। তবে আবেদন করেও এক লাখ ১০ হাজার শিক্ষার্থী কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পায়নি।

মাউশি সূত্র জানিয়েছে, লটারিতে অংশ নিয়েছে এমন স্কুলে এখনও ছয় লাখ ৬৪ হাজার ১৬৬টি শূন্য আসন রয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) ফৌজিয়া জাফরীন বলেন, যারা আবেদন করেও লটারিতে ভর্তির সুযোগ পায়নি, তারা আসন খালি থাকা স্কুলে সরাসরি গিয়ে ভর্তি হতে পারবে। অনলাইনে ভর্তির আবেদন করেনি, তারাও এ সুবিধা পাবে। সর্বশেষ যেসব স্কুলে আসন শূন্য রয়েছে, সেই তালিকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে চাওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email